Deprecated: mysql_connect(): The mysql extension is deprecated and will be removed in the future: use mysqli or PDO instead in /home/sumon09/public_html/include/config.php on line 2
 প্রতি হেক্টরে ধানের ফলন এক টন বাড়াতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

২১ জুলাই ২০১৮


হোম   »   কৃষি তথ্য   »   সরকার ও কৃষি মন্ত্রনালয়  
প্রতি হেক্টরে ধানের ফলন এক টন বাড়াতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

২০২৫ সালের মধ্যে দেশের জনসংখ্যা ১৮ কোটি ছাড়িয়ে যাবে। দেশের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এ সময়ের মধ্যে দেশের প্রতি হেক্টরে ফলন কমপক্ষে এক টন বাড়াতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিতে বিজ্ঞানীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আজ মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের (ইরি) ৫০ বছর পূর্তি উদ্যাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী এ আহ্বান জানান। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলনকেন্দ্রে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী ধান-বিজ্ঞানীদের উদ্দেশে বলেন, ‘আমাদের হেক্টরপ্রতি ধানের ফলন দুই দশমিক ৮ মেট্রিক টন। বিশ্বের অনেক দেশের তুলনায় এটা অনেক কম। আমাদের আবহাওয়ায় কী করে আরও ফলন বাড়ানো যায়, তা নিয়ে আপনাদের কাজ করতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে দেশের ধান উত্পাদনের চিত্র তুলে ধরতে গিয়ে বলেন, বিশ্বের যে ১১৪টি দেশে ধান উত্পাদিত হয়, এর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান চতুর্থ। এশিয়ার দেশগুলোতে উৎপাদিত হয় ৯০ শতাংশ। বাংলাদেশের মানুষের ৮০ শতাংশ ক্যালরি আসে ধান থেকে—এ মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘খাদ্য নিরাপত্তার জন্য আমাদের ধানের ফলন বাড়াতে হবে।’

বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর দুই দফা সারের দাম কমানোর কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ৯০ টাকা কেজি দরের সার এখন ২২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ইরির সহযোগিতায় ব্রির বিজ্ঞানীরা ব্রি ধান-৫১ ও ব্রি ধান-৫২ উদ্ভাবন করেছেন, যা বর্ষার পানিতে ডুবে গেলেও ফলন দেবে। তিনি বলেন, অতিসম্প্রতি বাংলাদেশ পাটের জন্মরহস্য উন্মোচন করেছে। এতে বাংলাদেশ পাটের মেধাস্বত্ব অধিকার পাবে।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী বলেন, ইরির সহযোগিতায় বাংলাদেশ এ পর্যন্ত পাঁচটি হাইব্রিড ও ৫০টি উচ্চফলনশীল জাতের ধান উদ্ভাবন করেছে। দেশের ৭৫ শতাংশ জমিতে উফশী জাতের ধান চাষ হয় ও ৮৭ শতাংশ চাল আসে এই জাত থেকে। অল্প দিনে উৎপাদিত হয় এবং লবণাক্তসহিষ্ণু জাত উদ্ভাবনে ইরির সহযোগিতা চান তিনি।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে খাদ্যমন্ত্রী আবদুর রাজ্জাক, ইরির মহাপরিচালক রবার্ট এস জিগলার, কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব সি কিউ কে মোস্তাক আহমেদ, ইরির বাংলাদেশ আবাসিক প্রতিনিধি জয়নাল আবেদিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
পাতাটি ১৯৯৬ প্রদর্শিত হয়েছে।
এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ

»  মজুদ বাড়াতে ১ লাখ ৮০ হাজার টন খাদ্যশস্য ক্রয় করবে সরকার

»  ১৮ লাখ হেক্টর প্লাবন ভূমিকে দেশী মাছ চাষে কাজে লাগাতে হবে : রাষ্ট্রপতি

»  প্রতি হেক্টরে ধানের ফলন এক টন বাড়াতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

»  মহাদেবপুরে কৃষি ভর্তুকির ২ লাখ ৭৩ হাজার টাকা ফেরত যাচ্ছে

»  দেশে পাট গবেষণা আরও জোরদার করা হচ্ছে