Deprecated: mysql_connect(): The mysql extension is deprecated and will be removed in the future: use mysqli or PDO instead in /home/sumon09/public_html/include/config.php on line 2
 হাইব্রিড মনোসেক্স তেলাপিয়া চাষ

১৯ আগষ্ট ২০১৮


হোম   »   কৃষি তথ্য   »   মৎস্য চাষ  
হাইব্রিড মনোসেক্স তেলাপিয়া চাষ

আমাদের দেশে আবহাওয়া ও মাটি তথা পরিবেশ হাইব্রিড মনোসেক্স তেলাপিয়া চাষের জন্য অত্যন্ত উপযোগী। সুস্বাদু ও দ্রুত বর্ধনশীল মাছ হিসেবেও এ মাছ চাষিদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে। সঠিক পদ্ধতিতে এ মাছের চাষ করে অনায়াসেই কম সময়ে আশাব্যঞ্জক মুনাফা অর্জন করা সম্ভব।

চাষপদ্ধতি : মাছ চাষে ভালো ফল পেতে হলে সঠিক চাষপদ্ধতি অনুসরণ করা জরুরি। সঠিক পদ্ধতিতে মাছ চাষের জন্য আপনাকে যা করতে হবে­

ঝোপজঙ্গল পরিষ্কার করা : পুকুরের চার পাশের ঝোপজঙ্গল পরিষ্কার করতে হবে। পুকুর যাতে পর্যাপ্ত সূর্যালোক পায়, সে জন্যই এটা করা জরুরি।

রাক্ষুসে মাছ ও বাজে মাছ দূর করা : পুরনো পুকুরের পানি সেচে শুকিয়ে ফেলাই সবচেয়ে নিরাপদ। সম্ভব না হলে বারবার জাল টেনে সব মাছ ধরে ফেলতে হবে। অন্যথায় নির্ধারিত মাত্রায় তিন ভাগের দুই ভাগ রোটেনন পাউডার পানিতে মিশিয়ে ও অবশিষ্ট একভাগ কাই করে ছোট বল আকারে পুকুরে ছিটিয়ে দিতে হবে। রোটেনন প্রয়োগের আধাঘন্টা পর জাল টেনে রাক্ষুসে মাছসহ অন্যান্য অবাঞ্ছিত মাছ ধরে ফেলতে হবে।

চুন প্রয়োগ : রোটেনন প্রয়োগের পাঁচ থেকে সাত দিন পর নতুন পুকুর অথবা সেচ দিয়ে শুকানো পুকুরের ক্ষেত্রে ৩ থেকে ৪ ফুট পানি প্রবেশ করানোর পর প্রতি শতাংশে এক কেজি হারে চুন প্রয়োগ করতে হবে।

সার প্রয়োগ : চুন প্রয়োগের পাঁচ-সাত দিন পর প্রতি শতাংশে ১০০ থেকে ১৫০ গ্রাম ইউরিয়া, ৫০ থেকে ৭৫ গ্রাম টিএসপি ও ৫ থেকে ৭ কেজি গোবর সার বা দুই-তিন কেজি মুরগির বিষ্ঠা পুকুরে ছিটিয়ে দিতে হবে। সার প্রয়োগের পাঁচ-সাত দিন পর পানির রঙ সবুজ বা হালকা বাদামি সবুজ হলেই মাছ চাষের জন্য সর্বোত্তম বিবেচনা করা যাবে।

পানির বিষাক্ততা পরীক্ষা : সার প্রয়োগের পাঁচ-সাত দিন পর পুকুরে পোনা ছাড়তে হবে। পুকুরের একটি নির্দিষ্ট জায়গায় হাপা অথবা মশারি উল্টো করে টাঙিয়ে চাষের জন্য সংরক্ষিত পোনা থেকে ৮-১০টি পোনা ছাড়তে হবে এবং ২৪ ঘন্টা পর্যবেক্ষণের পর যদি দেখা যায় পোনাগুলো বেঁচে আছে, তাহলে বুঝতে হবে পুকুরটি পোনা ছাড়ার সম্পূর্ণ উপযোগী।

পোনা মজুদ ঘনত্ব : চাষপদ্ধতির ধরনের ওপর পোনার মজুদ ঘনত্ব ও কাáিক্ষত উৎপাদন নির্ভর করে। শুধু সার প্রয়োগের মাধ্যমে চাষ করা হলে প্রতি শতাংশে ৭০-১০০টি, সার প্রয়োগ ও সম্পূরক খাদ্য প্রয়োগের মাধ্যমে চাষ করা হলে প্রতি শতাংশে ১০০-১৫০টি, সার ও সুষম খাদ্য প্রয়োগের মাধ্যমে চাষ করা হলে শতাংশে ২০০-২৫০টি পোনা ছাড়া যেতে পারে।

মজুদ পরবর্তী ব্যবস্খানা : পোনা মজুদের পর নিয়মিত মানসম্মত খাবার দেয়া হলে ভালো উৎপাদন আশা করা যায়। এজাতীয় মাছের খাদ্যে বিভিন্ন বয়সে আমিষের চাহিদার ক্ষেত্রে কিছুটা হেরফের হয়। পোনা অবস্খায় সাধারণত ৩৫ শতাংশ আমিষযুক্ত খাবার দিতে হয়। পরবর্তী পর্যায়ে ক্রমান্বয়ে ৩০-২৫ শতাংশ কমিয়ে ভালো ফল পাওয়া যায়।

এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, এক একর আয়তনের একটি পুকুরে সঠিক পদ্ধতিতে হাইব্রিড মনোসেক্স তেলাপিয়া চাষ করে ছয় মাসে পুকুর ভাড়াসহ মোট খরচ হয় দুই লাখ ৩৫ হাজার ২৫০ টাকা এবং এই সময়ে শুধু মাছ বিক্রি বাবদ আয় হয় তিন লাখ ৬০ হাজার টাকা। এতে ছয় মাসে সর্বমোট লাভের অঙ্ক দাঁড়ায় এক লাখ ২৪ হাজার ৭৫০ টাকা।
পাতাটি ৮১৮৯ প্রদর্শিত হয়েছে।
এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ

»  কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে পাবদা মাছ রক্ষার

»  মনোসেক্স গলদা চিংড়ি চাষের কলাকৌশল

»  মাছ চাষে বায়োটেকনোলজি

»  উচ্চ উৎপাদনশীল থাই কৈ মাছের চাষ পদ্ধতি

»  মাছের মিশ্র চাষ