Deprecated: mysql_connect(): The mysql extension is deprecated and will be removed in the future: use mysqli or PDO instead in /home/sumon09/public_html/include/config.php on line 2
 মধু সংগ্রহে ব্যস্ত চাষি

২১ আগষ্ট ২০১৮


হোম   »   কৃষি তথ্য   »   কৃষি সংবাদ  
মধু সংগ্রহে ব্যস্ত চাষি

চলছে রবিশস্যের মৌসুম। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মাঠ হলুদ সরিষার ফুলে ভরে গেছে। আর এই সুযোগে মৌচাষিরা সংগ্রহ করেছেন পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ মধু। জীবন ও জীবিকার তাগিদে অনেক মৌচাষি মধু সংগ্রহকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়ে নিজেদের করেছেন স্বাবলম্বী এবং উত্পাদনের সংঙ্গে সম্পৃক্ত থেকে জাতীয় উন্নয়নে রাখছে বিশেষ ভূমিকা। দেশের সাতক্ষীরা, নারায়ণগঞ্জ, গোপালগঞ্জ, মাদারীপুর, শরীয়তপুর, রাজবাড়ি, কিশোরগঞ্জ, ফরিদপুর, ঈশ্বরদী থেকে শতাধিক মৌচাষি এসেছেন মানিকগঞ্জে। তারা মানিকগঞ্জ সদর, ঘিওর, সাটুরিয়া, দৌলদপুর, হরিরামপুর, শিবালয় উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলে বিভক্ত হয়ে মধু সংগ্রহের কাজ করছেন। সাতক্ষীরা জেলা থেকে আসা মৌচাষি গফুর মিয়া জানান, প্রতি বছর ডিসেম্বর থেকে মধু সংগ্রহের কাজ শুরু হয়ে চলে মার্চ পর্যন্ত। এই জেলার শতাধিক খামারি মধু সংগ্রহের কাজ করেন। চলতি মৌসুমে তারা মধু সংগ্রহের কাজে ৩৫০টি বাক্স ব্যবহার করেছেন। একই জেলার মৌচাষি মিন্টু মিয়া জানান, ১০ বছর ধরে তিনি সরিষা ফুল থেকে মধু সংগ্রহের কাজ করছেন। প্রতিটি বাক্স থেকে ৩-৪ কেজি মধু সপ্তাহে একদিন সংগ্রহ করা হয়। প্রতি কেজি মধু ১শ’ টাকা থেকে ২শ’ টাকায় বিক্রি করা হয়। প্রতিটি খামারে কমপক্ষে ৩-৫ জন শ্রমিক কাজ করেন। শ্রমিকরা মাসে এক থেকে পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত বেতন পান। মধু সংগ্রহে যে মৌমাছি ব্যবহার করা হয়, এগুলো দেশি মৌমাছি নয়। এফিসমেলিফ্রা জাতের অস্ট্রেলিয়ান মৌমাছি দিয়ে এই মধু সংগ্রহ করা হয়। মৌমাছিগুলো পাশের দেশ থেকে আনা হয়। মানিকগঞ্জ কৃষি সমপ্রসারণ অধিদফতরের উপ পরিচালক মামুন-উর-রশিদ জানান, জেলায় এবার ৪০ হাজার হেক্টর জমিতে সরিষা চাষ হয়েছে। সরিষা ক্ষেতের পাশে বেশি মৌমাছি চাষ এবং মধু সংগ্রহ করায় ভাল পরাগায়ণ হওয়ায় ফলনও আশানুরূপ পাওয়া যাবে।

মানিকগঞ্জ থেকে শীত মৌসুমে প্রায় কয়েক কোটি টাকার মধু সংগ্রহ হবে বলে জানান সংশ্লিষ্ট মৌচাষিরা। সরিষা ফুল থেকে মধু সংগ্রহের কাজ আরও বৃহত্ পরিসরে করতে পারলে এটি দেশের অর্থনীতিতে বড় ভূমিকা রাখবে বলে মৌচাষিরা মনে করেন। সেই সাথে সরকার যদি মধু প্রক্রিয়াজাত করার সহায়তা, বিদেশে রফতানির ও মধু চাষে ঋণ ব্যবস্থা করলে এই পেশায় আরও কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হত।

লেখক: নৃপেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী
পাতাটি ২৩২৬ প্রদর্শিত হয়েছে।
এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ

»  আগামী বাজেটে কৃষিখাতে ভর্তুকির পরিমাণ বাড়ছে

»  পেঁপের নতুন জাত উদ্ভাবন

»  কৃষিতে ৫৫ দফা সুপারিশ

»  ফরিদপুরের কালো সোনা

»  গ্রীষ্মকালীন তুলার নতুন জাত উদ্ভাবন